তহবিল ব্যয়

কেন্দ্রীয় তহবিল– এর অধীন (১) সুবিধাভোগী কল্যাণ হিসাব এবং (২) আপদকালীন হিসাব নামে ২টি হিসাব রয়েছে । কেন্দ্রীয় তহবিল-এ প্রাপ্ত মোট অর্থের শতকরা ৫০ (পঞ্চাশ) ভাগ সুবিধা কল্যাণ হিসাব এবং অবশিষ্ট শতকরা ৫০ (পঞ্চাশ) ভাগ আপদকালীন হিসাব-এ জমা হবে।

সুবিধাভোগী কল্যাণ হিসাব হইতে নিম্নবর্ণিত ক্ষেত্রে অনুদান প্রদান করা যাবে, যথাঃ

১। কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনাজনিত কারণে অথবা পেশাগত রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলে অথবা পরবর্তিতে মৃত্যু ঘটলে অথবা কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনাজনিত কারণে অথবা পেশাগত রোগে আক্রান্ত হয়ে স্থায়ী অক্ষমতা ঘটলে সংশ্লিষ্ট সুবিধাভোগী বা তার উপযুক্ত উত্তরাধিকারী ও পোষ্যকে ৩,০০,০০০/- (তিন লক্ষ) টাকা অনুদান প্রদান;

২। কোন সুবিধাভোগী চাকরিরত অবস্থায় অসুস্ত হয়ে বা কর্মক্ষেত্রের বাইরে কোন দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ অথবা স্থায়ীভাবে অক্ষম হয়ে গেলে তিনি বা তার উপযুক্ত উত্তরাধিকারীকে ২,০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকা অনুদান প্রদান;

৩। কোন সুবিধাভোগী কর্মকালীন দুর্ঘটনায় পতিত হয়ে তার কোন অঙ্গহানি ঘটলে যা স্থায়ী অক্ষমতার কারণ নহে তাহলে তাকে অনধিক ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকা অনুদান প্রদান;

৪। অসুস্থ সুবিধাভোগীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা বা আর্থিক অনুদান প্রদান ।

৫। সুবিধাভোগীদের পরিবারের মেধাবী সদস্যকে শিক্ষার জন্য বৃত্তি প্রদান ।

৬। তহবিল পরিচালনা ও প্রশাসনিক উদ্দেশে অনন্য প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা।

৭। সামাজিক নিরাপত্তামূলক সুবিধা হিসাবে বিশেসায়িত হাসপাতাল স্থাপন।

আপদকালিন হিসাব হইতে নিন্ম বর্ণীত ক্ষেত্তে অনুদান প্রদান করা যাবে যথাঃ

১। কোন কারখানা বা প্রতিষ্ঠান স্থানান্তর বা স্থায়ীভাবে বন্ধ হলে বোর্ড কতৃক সুবিধাভোগীদের পাওনা অর্থের সমুদয় বা আংশিক পরিশোধ।

২। সুবিধাভোগীদের গ্রূপ বীমার বৎসরিক প্রিমিয়ামের অর্থ প্রদান।

৩। সুবিধাভোগীদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণের জন্য স্বাস্থ্য বীমা স্কীম চালুকরণ।

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial